শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কালীগঞ্জে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ১ হজার বৃক্ষ রোপন কালীগঞ্জে জাতীয় ভিটামিন “এ” প্লাস ক্যাম্পেইন বিষয়ে অবহিত করণ সভা হাতীবান্ধায় বীর মুক্তিযোদ্ধাকে বটি দিয়ে কোপানোর চেষ্টা, মেয়েকে ধর্ষনের হুমকি কালীগঞ্জে বন্যা দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কালীগঞ্জে বাল্যবিয়ের দায়ে কাজীর ৬ মাসের জেল,৫ হাজার টাকা জরিমানা করোনা কালীন শিক্ষা যোদ্ধা সহঃশিক্ষক  রুবেল    কালীগঞ্জে তেলের ঘানি টানা ছয়ফুল পেলেন প্রধানমন্ত্রী উপহার এছাড়াও পুলিশ ও  বসুন্ধরার বাল্য বিবাহ দেয়ার পরিনাম হচ্ছে একটি মেয়ে শিশুকে হত্যা করা- জেলা প্রশাসক কালীগঞ্জে অসহায় পরিবারকে চিকিৎসার জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর পক্ষে আর্থিক সহায়তার চেক প্রদান নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রকল্প শেষ করতে হবে : জনগণের বাস্তবিক চাহিদার কথা মাথায় রেখে
বদলে গেছে কালীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিসের চিত্র

বদলে গেছে কালীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিসের চিত্র

রাহেবুল ইসলাম টিটুল লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ

“দিন যায় কথা থাকে ” সুবির নন্দীর কন্ঠে বিখ্যাত এই গানের শুরে শুর মিলিয়ে বলা যায় প্রশাসনেও – একজন যায়,একজন আসে । কিন্তু ব্যতিক্রম হিসেবে থেকে যায় তার কর্মকান্ড ।

তেমনই একজন কর্মচঞ্চল মানুষ হলেন বর্তমান কালীগঞ্জ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু সাঈদ। লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিস বদলে গেল হঠাৎ করেই।

এই আকস্মিক পরিবর্তনে সবার নজর কারে অনায়াসে বারবার। সেবা নিতে আসা স্থানীয় জনসাধারন কাঙ্খিত সেবা পেয়ে বর্তমানে খুবই খুশি । এখন আর ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়িয়ে থেকে জমির মালিক কে খুজতে হয় না কাঙ্খিত সেবা পাওয়ার আশায় কার কাছে যেতে হবে ।

কালীগঞ্জ উপজেলা ভুমি অফিসের গেট দিয়ে ঢোকা মাত্রই সেবা প্রদানকারীদের সহযোগিতা পাওয়া যায়।

এখন আর দালালদের কাছে বুদ্ধিপরামর্শ নিতে হয় না ভূমি মালিক গনের। তাই চরম বিপাকে পড়েছেন কতিপয় দালল চক্র।

আগে এ অফিসের সেবার মান নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন থাকলেও নি:সন্দেহে এখন আর নেই সেই প্রশ্ন। আর এর সবকিছুই সম্ভব হয়েছে নতুন সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু সাঈদ যোগদানের পর থেকে।

গত ২০১৭ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর বর্তমান সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু সাঈদ কালীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিসে যোগদানের পর হতেই পাল্টে গেছে ভুমি অফিসের গতানুগতিক চিত্র, অক্লান্ত পরিশ্রম করে সেবা প্রদান করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন তিনি।

সরেজমিনে উপজেলা ভুমি অফিসে গিয়ে দেখা যায়, পুরাতন সেই জরাজীর্ন ভূমি অফিসের ভবন থেকে অপরুপ সাজে নতুন রুপ নিয়ে পাল্টে গেল কালীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিস ভবন।

এখন অফিস ভবনের সামনে রঙ্গীন ফুলে সজ্জিত ফুলের বাগান, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার একবিন্দু ঘাটতি নেই ভবনের আশেপাশে, ভবনের নতুন রং নজরে আসে বারেবার, ছোট একটি টিনের সাইনবোর্ড যা মানুষের নজরে আসার মতো ছিলনা সেখানে বিশাল আকারের একটি

ডিজিটাল প্রিন্টের সাইন বোর্ডে বড় অক্ষরে লেখা হয়েছে “ উপজেলা ভূমি অফিস“, তাই এখন আর কারো কাছে প্রশ্ন করতে হয়না “ভাই এখানে ভুমি অফিস কোন টা?’’ ।

একটি ফ্রন্ট ডেক্স/ হেল্প ডেক্স রয়েছে যেখানে একজন অফিস সহকারি বসে থাকেন আর ভূমির মালিকগন আসামাত্রই তিনিই কাগজপত্র নিরুপন করে কোন কক্ষে কার কাছে যেতে হবে, কি কি সহায়তা দেয়া হবে সহ নানা পরামর্শ দেন।

ভূমি মালিকগনের হাতে সেবা পৌছে দেয়ার লক্ষে, প্রতিটি অফিস কক্ষের পাশে ঝোলানো ফেস্টুনে লেখা আছে ভূমি বিষয়ক সকল সেবা সমূহের তালিকা, সেবা/পরামর্শ/অভিযোগের জন্য সরাসরি এসিল্যান্ড এর সাথে কথা বলুন ।

সেবা নিতে আসা জনসাধারনের জন্য বারান্দায় বসার ব্যাঞ্চ , প্রতিটি খামের উপরে সিরিয়াল নাম্বার দিয়ে রেখেছেন এবং একটি ভলিউম বুক তৈরি করেছেন যেখানে সিরিয়াল দেয়া আছে এবং যে কোন লোক যদি তার জমির নথিপত্র উঠাতে আসেন তাহলে শুধুমাত্র ১৫ সেকেন্ডই

হাজার কাগজের মাঝে খুজে পাওয়া যায় কাঙ্খিত নথিপত্র। এসিল্যান্ড তার অফিস কক্ষে এনেছেন গোছালো পরিবেশ যা আগে শুধুই বসার স্থান ছিল কিন্তু অফিস কক্ষের মতোন দেখতে ছিল না। সার্বিক পরিস্থিতি দেখলেই বোঝাযায় একটি সরকারি সেবা কেন্দ্র।

সেবা নিতে আসা কয়েক জনের সাথে কথা বলার সময়, তারা বলেন, “আমরা এই স্যার আসার আগেও এসেছিলাম। আজকে এসে মনে হলো আমরা কি এই অফিসেই এর আগে এসেছিলাম?

আর অফিসের সকলের আচরনে মনে হলো আমারা তাদের মেহমান। যে অফিসের সামনে এলে কেন জানি ভয়ে গুটিসুটি হয়ে থাকতাম সে অফিসে আজ এসে সরাসরি এসিল্যান্ড স্যারের সাথে কথা বললাম সামনে বসে।

আমরা সাধারন কৃষক মানুষ স্যার কি মনে করে এতাটা সম্মান দিল জানি না” আবেগে প্রায় কাঁদো কাদো গলায় এসব বলছিলেন সেবা নিতে আসা পায়ে একজোড়া অর্ধছেড়া স্যান্ডেল, গলায় গামছা, পড়নে লুঙ্গী ও পুরাতন পাঞ্জাবী পরিহীত এক কৃষক ।

সাথে আরো লোকজন বললেন “আসলেই আমাদের আজকে মনে হইল সরকার আমাগো জন্য সবই দিছে শুধু অন্য সব খানের স্যারেরা যদি আমাগো একটু সু-নজর দিয়া দেখে তাইলেই সারাদেশে সবাই বুজবো।”

সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু সাঈদ বলেন, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ, মাননীয় সমাজকল্যাণ মন্ত্রী মহোদয়, জেলা প্রশাসক মহোদয়, ইউএনও মহোদয় সহ সবার সহযোগিতায় এ অফিসকে সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করাই আমার লক্ষ্য। তিনি আরও বলেন,

আমি যোগদানের পর ভূমি সংক্রান্ত কাজে আসা সকল কে বলি, ভূমি সংক্রান্ত সকল বিষয়ে কারো শরনাপন্ন হওয়ার দরকার নেই সরাসরি আমাকে ফোন করে চলে আসেন আমি দেখব ইনশাআল্লাহ্।

স্থানীয় লোকজন সহ সকলেই তৃপ্ত হয়েছেন কালীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিসের আকস্মিক পরিবর্তনে। সরকারি অফিসগুলো এরকম সাজানো গোছানো থাকা বাঞ্চনীয় বলেই মনে করছেন উপজেলার জন-সাধারন সহ স্থানীয় সচেতন মহল।

শেয়ার করুন:

সংবাদ টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভাষা পরিবর্তন করুন




© All rights reserved © 2018 লালমনিরহাট অনলাইন নিউজ
Design BY PopularHostBD