সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ০১:১৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রযুক্তিতে গুরুম্ব দেওয়ার আহ্বান ড. বশিরের কালীগঞ্জে ৩০ বছর ধরে ঝুঁপড়িতে রাঁতকাটে গৌর দাসের! কালীগঞ্জে ভূমিহীন ও গৃহহীন ১৫০ পরিবারের মাঝে জমি ও গৃহ প্রদান কালীগঞ্জে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ১৫০ পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর উপহার জমি ও ঘর  হাতে টাকা ছিলনা,অভিযোগ করলেন আড়াই লক্ষ টাকা ছিনতাইয়ের লালমনিরহাটে ঘন কুয়াশা,বেড়েছে ঠান্ডাজনিত রোগ–নেই শীতবস্ত্র তিস্তায় এখন পানিও নেই মাছও নেই কষ্টে দিন কাটাচ্ছি তিস্তা পাড়ের জেলেরা  পাটগ্রামের ‘ইউএনও কে দ্রুত অপসারণ করা না হলে রাস্তাঘাট অচলের হুঁশিয়ারী ইউএনওর আশ্বাসে ঘুরেও জুটলোনা কিছুই লালমনিরহাট অনলাইন নিউজে সংবাদ প্রকাশের পর ফাতেমার ভাঙ্গা বাড়ীতে ডিসি,ঘর দেয়ার আশ্বাস
মেধা তোমার মূল হাতিয়ার, অদম্য ইচ্ছা, কঠোর অধ্যবসায় রাকিবুজ্জামান আহমেদ

মেধা তোমার মূল হাতিয়ার, অদম্য ইচ্ছা, কঠোর অধ্যবসায় রাকিবুজ্জামান আহমেদ

মোহাম্মদ নাফিস রহমান চৌধুরী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের শিক্ষার্থী। অনার্স প্রথম বর্ষে জিপিএ আউট অফ ৪ এর মধ্যে জিপিএ ৩.৯৪ পেয়ে কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তির্ণ হয়েছে।

এ সাফল্যে তোমার জন্য রইলো প্রাণঢালা অভিনন্দন, লাল গোলাপ শুভেচ্ছা, হৃদয় নিংড়ানো ভালবাসা। শিক্ষাজীবনের অনার্সের প্রথম বর্ষটি অতিক্রম করতে পেরেছ অত্যন্ত সার্থকতার সঙ্গে। তোমার মঙ্গল কামনা করি।

মেধা তোমার মূল হাতিয়ার, অদম্য ইচ্ছা, কঠোর অধ্যবসায়, জয় করার সিদ্ধান্ত সে হাতিয়ারকে শাণিত করেছে নিশ্চয়। তুমি পেরেছ কারণ তোমার এগিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা প্রবল। তোমার জন্য রইল দোয়া ও শুভ কামনা।

তোমার এ কৃতিত্বকে আমরা স্বীকার করে নিই। তোমার সাফল্যকে আমরা গৌরবের স্মারক বলে মনে করি। এই তোমার শুরু। শেষটা অনেক দূর। শুরুর সাফল্য তোমাকে আনন্দিত করেছে, সন্দেহ নেই, কিন্তু সেই আনন্দের ঢেউ যেন শেষের উদ্দিষ্টকে প্লাবিত করে না ফেলে। শেষটা কোথায়? যেখানে দাঁড়িয়ে ক্ষুধামুক্ত আত্মনির্ভরশীল অপ্রতিরোধ্য এক বাংলাদেশ।

তোমরা যারা নবীন তারা্ই এমন উদাহরণ সৃষ্টি করতে পার, সেই তোমাদেরকে নিয়েই স্বপ্ন দেখা যায়। কিন্তু তুমি কি জানো তোমাকে নিয়ে আমাদের স্বপ্নটা কী? দু’টি স্বপ্ন। প্রথমটি তুমি অনেক বড় সত্যিকার মানুষ হবে। দ্বিতীয়টি তোমার এই ‘বড়ত্ব’ দিয়ে তোমার পিতামাতা, পরিবার এবং বাংলাদেশকে বড় করে তুলবে। দেশকে নিয়ে স্বপ্ন না দেখলে, দেশকে এবং দেশের মানুষকে ভাল না বাসলে আর যা-ই হও, বড় হতে পারবে না।

একথাগুলো তোমাকে বলছি, কারণ তুমিসহ যারা পাস করেছ এবং যারা পাস করতে পারেনি, তোমাদের মধ্যেই হয়ত লুকিয়ে আছে আগামীর বাংলাদেশের রাষ্ট্রনায়ক। যে ছেলেটি বা মেয়েটি এ বছর পরীক্ষায় পাস করতে পারে নি, কে জানে, সে-ই হয়ত একদিন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হবে। ব্রাজিল বিশ্বকাপ ফুটবলে সবচেয়ে বেশি বার জয়ী দেশ। পেলের দেশ। সেই ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুইস ইনাসিও লুলা দা সিলভা চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশুনা করতে পেরেছিলেন। লুলার বয়স যখন ১৪, তখন সে রাস্তার মোড়ে বসে থাকত রং পলিস নিয়ে। করত মুচির কাজ।

এরপর জীবনের নানা ঘাত প্রতিঘাত সয়ে সয়ে লুলা উদ্বুদ্ধ হলেন জীবনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিতে। হার মানেন নি। হলেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট। প্রথমবার ২০০২ সালে। ২০০৬ এ দ্বিতীয়বার। হলেন ‘’টাইম’’ সাময়িকীর বিবেচনায় ২০১০ সালের সেরা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব! এই হলো থেমে না থাকার গল্প।

মনে রাখবে- জীবনের কোনো ঘটনাই জীবনের চেয়ে বড় নয়। অনেকে ফেল করে আত্মহত্যা করে। ইভটিজিংয়ের শিকার হয়ে আত্মহননের পথও বেছে নেয় কেউ কেউ। এগুলো পরাজয়। তুমি দা সিলভার কাছ থেকে শিক্ষা নিতে পার কীভাবে জয়ী হতে হয়।

এই ফলাফলে তোমার মেধার স্বীকৃতি পেয়েছ। অবশ্যই গর্বের বিষয়। তবে ফলাফলই কিন্তু শেষ কথা নয়। ফলাফল তোমাকে অনুপ্রাণিত করে। উৎসাহিত করে। তোমাকে একটি জায়গায় দাঁড় করিয়ে দেয়। এরপর তোমার কাজই হয়ে ওঠে তোমার পরিচয়। ভাল শিক্ষার্থী হওয়া যত সহজ, ভাল মানুষ হওয়া তত সহজ নয়। তার জন্যে মনুষ্যত্ববোধ, নৈতিকতার অনুশীলন, অন্যের জন্য কাজ করা এবং দেশপ্রেম– এসবকেই আঁকড়ে ধরতে হবে। দেশপ্রেম শুধু বক্তৃতা-বিবৃতিতে নয়, থাকতে হবে চেতনায় ও কাজে। যেমনটা ছিল `Milkman of India` বলে পরিচিত ড. ভার্গেস কুরিয়েন এর। ড. ভার্গেস `An Unfinished Dream` নামে একটি বই লিখেছেন। সেখানে তিনি বলেছেন, “আমি দুধের ব্যবসায় নেমেছি একজন ব্রিটিশ বিশেষজ্ঞের সমালোচনার প্রেক্ষাপটে। ঐ ব্রিটিশ সমালোচক বলেছিলেন, ‘বোম্বের দুধের চেয়ে লন্ডনের নর্দমার পানিও অপেক্ষাকৃত স্বাস্থ্যসম্মত’। এই সমালোচনাকে ভার্গেস চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন। সেই চ্যালেঞ্জের ফল- আজকের ভারতের পৃথিবীতে দুগ্ধ উৎপাদনে প্রথম সারিতে অবস্থান।

অনমনীয় দেশপ্রেম আর উদ্দ্যেশ্য’র প্রতি অবিচলতাই এমন সাফল্য এনে দিতে পারে। মহাঋষী পতঞ্জলী বলেছিলেন, ‘ যখন মহৎ কোনো কিছু করার জন্য তুমি অনুপ্রাণিত হও, তখন তোমার চিন্তার সীমাবদ্ধতা ভেঙ্গে যায়, প্রতিটি ক্ষেত্রে তোমার সচেতনতা তীব্র হয়ে ওঠে এবং তুমি একটি নতুন চমৎকার জগৎ খুঁজে পাও। তোমার অন্তর্নিহিত শক্তি, উদ্যম আর বিচক্ষণতা নতুন করে জীবন্ত হয়ে ওঠে এবং এসবের মধ্য দিয়ে তুমি এমন জায়গায় যেতে পার যা তুমি আগে হযত কল্পনাও করো নি’।

বিশ্বায়নের এই যুগে তোমরা কোনো কিছু থেকে বিচ্ছিন্ন নও। নিজেদের জানতে হবে। সেই সাথে দেশকে এবং দেশের মানুষকেও। অমিত সম্ভাবনার আমাদের এই বাংলাদেশ।

শুধুমাত্র উদাহরণ সৃষ্টিকারী দেশপ্রেমিক কোনো নেতৃত্বই পারে অধিকাংশ ভাল মানুষের এ দেশটিকে সমৃদ্ধির বাংলাদেশে পরিণত করতে। সেই নেতৃত্বের শূন্যতা পূরণে তোমাদের দিকে তাকিয়ে পুরো বাংলাদেশ। মহাত্মা গান্ধীর নাম হয়তো তুমি জানো।

ভারতের জাতির জনক। ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট ভারত স্বাধীন হল। পরের দিনের পত্রিকায় পণ্ডিত জওহরলাল নেহেরুর স্বাধীনতার ঘোষণা প্রকাশিত হল ব্যানার হেডলাইনে। এই ঐতিহাসিক ঘটনাকে সবাই উদযাপন করছে। যাঁর অবদানে এই ঐতিহাসিক ঘটনার জন্ম, তাঁর একটি খবর পাওয়া গেল পত্রিকার একই পাতার নিচের দিকে। সবাই যখন আনন্দে উদ্বেলিত, জাতির জনক মহাত্মা গান্ধী তখন নোয়াখালীতে। খালি পায়ে হেঁটে হেঁটে তিনি সেবা করছেন সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় আহত জনগণের। এই হল নেতৃত্ব।

এপিজে আবদুল কালামের একটি ঘটনা দিয়েই শেষ করছি। আহমেদাবাদের স্বামী মহারাজের সাথে সাক্ষাৎ করতে গিয়েছিলেন জনাব কালাম। তিনি স্বামীজিকে বললেন, ‘আমরা উন্নয়নশীল ভারতকে উন্নত ভারতে পরিণত করার জন্য পাঁচটি ক্ষেত্রকে চিহ্নিত করেছি। এগুলো হল- শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা, কৃষি, তথ্য ও যোগাযোগ, অবকাঠামো, এবং প্রযুক্তি। এগুলোর মাধ্যমে আমরা কীভাবে সফল হতে পারি? আপনার পরামর্শ চাই’।

স্বামীজি বললেন, ‘এ পাঁচটি বিষয়ের সাথে আরো একটি বিষয় অপরিহার্য়। তা হল- স্রষ্টার প্রতি বিশ্বাস এবং মানুষের নৈতিকতার উন্নয়ন’।

জ্ঞানার্জনের গুরুত্ব ইসলাম ধর্মে অপরিসীম। ইসলাম জ্ঞানবানদের দিয়েছে ভিন্ন সম্মান ও মর্যাদা। জ্ঞান হল মানুষের জীবন চলার পথে আলো। আলো ছাড়া যেমন কেউ পথ চলতে পারে না, তেমনি জ্ঞান ছাড়াও প্রকৃত মানুষ হিসেবে জীবনযাপন করা যায় না।

ইসলামী আইন শাস্ত্রের যত গ্রন্থ রয়েছে তার সবগুলোতে জ্ঞানার্জন বিষয়ক অধ্যায় কিতাবের অগ্রভাগে সন্নিবেশিত হয়েছে। পবিত্র কোরআনে এরশাদ হয়েছে, রাসুল (সা.)-এর ওপর হেরা গুহায় সর্বপ্রথম যে ওহি নাজিল হয়, ‘‘পাঠ করুন আপনার প্রভুর নামে যিনি সৃষ্টি করেছেন” (সূরা আলাক, আয়াত-১)।

মহান আল্লাহ আরও এরশাদ করেন, ‘‘আপনি বলুন, যারা জ্ঞানী এবং যারা জ্ঞানী নয় তারা কি সমান হতে পারে?” (সূরা যুমার, আয়াত-৯)।

ইসলামের ইতিহাসে দেখা গেছে, কোরআন-হাদিসের বাইরে ইসলামী পণ্ডিতরাও সর্বদা জ্ঞানার্জনের প্রতি উৎসাহ দিয়েছেন।

হজরত লোকমান (আ.) তার সন্তানকে বলেন, ‘হে বৎস! তুমি এ জন্য জ্ঞানার্জন করো না যে তুমি জ্ঞানীদের সাথে অহংকার করবে কিংবা মূর্খদের ওপর নিজেকে জাহির করবে অথবা বিভিন্ন মজলিসে নিজেকে বিশেষভাবে উপস্থাপন করবে। তুমি জ্ঞানকে উদাসীনতায় পরিত্যাগ করো না বা মূর্খতার মাঝে নিক্ষেপ করো না। হে বৎস! তুমি আপন চোখ দিয়ে দ্বীনী মজলিস বাছাই করে নাও। যখন কোনো দলকে আল্লাহর স্মরণ করতে দেখবে তখন তাদের সাথে যোগ দিবে। তুমি যদি আলোচ্য বিষয়ে জ্ঞান রাখ তাহলেও তা তোমার জ্ঞানবৃদ্ধিতে সহায়তা করবে। আর যদি তা তোমার অজানা থাকে তবে তোমার নতুন কিছু জানা হবে। হতে পারে আল্লাহ তাদের ওপর রহমত নাজিল করবেন যার একটি অংশ তুমিও প্রাপ্ত হবে। আর যে দল আল্লাহকে স্মরণ করে না তাদের সাথে বসবে না। কেননা যদি আলোচ্য বিষয়টি সম্পর্কে তোমার জ্ঞান থাকে তাহলে তা তোমাকে কোনো ফায়দা দেবে না। পক্ষান্তরে যদি তা তোমার অজানা থাকে তাহলে তারা তোমাকে পথভ্রষ্ট ও অক্ষম করে ফেলবে। হতে পারে আল্লাহ তাদের ওপর শাস্তি অবতীর্ণ করবেন যা তোমাকেও স্পর্শ করবে। ’ –আহমাদ, হাদিস নং : ১৬৫১

হজরত আলী (রা.) বলেন, ‘জ্ঞান অর্থ-সম্পদের চেয়ে উত্তম। কেননা জ্ঞান তোমাকে পাহারা দেয়, কিন্তু অর্থকে উল্টো পাহারা দিতে হয়। জ্ঞান হলো শাসক, আর অর্থ হলো শাসিত। অর্থ ব্যয় করলে নিঃশেষ হয়ে যায় কিন্তু জ্ঞান বিতরণ করলে আরো বৃদ্ধি পায়।’-ইমাম গাজ্জালি, এহইয়াউল উলুম : ১/১৭-১৮

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ৩০ লাখ শহীদ এবং ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে আমরা আমাদের মহান স্বাধীনতা অর্জন করেছি। তাঁর স্বপ্ন ছিল মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনের মাধ্যমে ক্ষুধা-দারিদ্র্য নিরক্ষরতামুক্ত সোনার বাংলাদেশ গড়ার। তোমরা জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে নিরলসভাবে পরিশ্রম করবে। এমনটায় প্রত্যাশা করি।

একথা অপরিহার্য সত্য যে, মেধার সাথে যদি নীতিবোধ,মূল্যবোধ এবং সততা না থাকে তাহলে সে-ই হয়ে ওঠে সবচেয়ে ভয়ংকর। আমাদের সবচেয়ে বড় পরিচয় আমরা মানুষ। মানুষকে শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছে জ্ঞান। কিন্তু তাকে সত্যিকার অর্থেই ‘মানুষ’ করে তুলতে পারে নৈতিক মূল্যবোধ। একটি সুনির্দিষ্ট নৈতিক মূল্যবোধ আর তার যথার্থ অনুশীলন ছাড়া শুধু জ্ঞান ফলদায়ক নয়।

তোমার জন্য আল্লাহর কাছে অনেক দোয়া করি। অন্তহীন শুভ কামনা তোমার জন্য। তোমাদের হাতেই নির্মাণ হোক আগামীর বাংলাদেশ।।

লেখা গুলো রাকিবুজ্জামান আহমেদ এর টাইম লাইন থেকে নেয়া।।

শেয়ার করুন:

সংবাদ টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভাষা পরিবর্তন করুন




© All rights reserved © 2018 লালমনিরহাট অনলাইন নিউজ
Design BY PopularHostBD