মঙ্গলবার, ১৪ Jul ২০২০, ০২:৩৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
২৪ বছরের রেকর্ড ভেঙেছে তিস্তা ৯৬’র বন্যার মতো ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে তিস্তা তিস্তায় সব  কয়টি গেট খুলে দিলেও পানির গতি নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না  তীরবর্তী মানুষদের সরে যেতে মাইকিং রেড অ্যালার্ট,জারি তিস্তার নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শনে পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা নারীদের কে সামনের সারিতে আনতে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করছে ইউএনও মুজিববর্ষে কালীগঞ্জে ঐতিহ্য শিবরাম পাবলিক স্কুলে পুলিশের বৃক্ষ রোপন মুজিববর্ষ উপলক্ষে লালমনিরহাট জেলা পুলিশের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালিত কালীগঞ্জে চুরি হওয়া ল্যাপটপ ও প্রজেকটর উদ্ধারে কালীগঞ্জ থানা পুলিশের প্রেস ব্রিফিং কালীগঞ্জে করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভা অনুষ্ঠিত সংবাদ প্রকাশের পর কবি শেখ ফজলল করিমের পাঠাগার পরিদর্শন করলেন ইউএনও রবিউল হাসান উপহার দিলেন বই কালীগঞ্জে নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শনে উপজেলা প্রশাসন
‘দেইক্ষা লন, বাইচ্ছা লন, মাত্র বিশ টাকা’

‘দেইক্ষা লন, বাইচ্ছা লন, মাত্র বিশ টাকা’

রাহেবুল ইসলাম টিটুল কালীগঞ্জ লালমনিরহাটঃ

লালমনিরহাট বাংলাদেশের উত্তরে অবস্থিত একটি সীমান্তবর্তী জেলা। উত্তরাঞ্চলে প্রচণ্ডরুপে বেড়েছে শীতের তীব্রতা। সন্ধ্যারাত থেকে বেলা দূপুর বন্দি কুয়াশায় ঢাকা পড়ছে জনপদ। প্রচণ্ড শীতে কাবু হয়ে পড়েছে এ জনপদের মানুষ। দিনের বেলায় মাঝে মধ্যে একটু রোদের ঝিলিক দেখা গেলেও রোদের তেজ তেমন নেই। মনে হচ্ছে যেন, শীতবুড়ি সূয্যিমামাকেও ছাড়েনি। লেপ-কাঁথা গায়ে জড়িয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন অনেকেই।

এই হাড়কাপানো শীতে সর্বস্তরের মানুষের গরম কাপড়ের প্রয়োজন দেখা দিয়েছে। অবস্থাসম্পন্ন ধনী ব্যক্তিরা সহজেই শীত নিবারণ করছে দামী সোয়েটার-জ্যাকেটের দোকানগুলোয় গিয়ে পছন্দসই গরম কাপড় কিনে।

এই শীতে সব থেকে বেশি ভুগতে হয় মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষদের। দামী দামী সোয়েটার-জ্যাকেট কেনার সামর্থ্য না থাকায় তারা সবাই ছুটছেন পুরনো গরম কাপড়ের দোকানগুলোয়। এসব দোকানে কম দামে বিদেশি পুরনো গরম কাপড় মিলছে। দামে তুলনামূলক সস্তা এবং মানের বিচারে ভালো হওয়ায় এসব দোকানে হরদম ভিড় লেগেই থাকছে।

লালমনিরহাট জেলার পাঁচ উপজেলার কালীগঞ্জ,হাতিবান্ধা,পাটগ্রাম,আদিতমারী,লালমনিরহাট সদরে দেখা যাচ্ছে এই পুরাতন কাপড়ের বেচা কিনার ভির। পাঁচ উপজেলার প্রতিটি রেলস্টেশনসহ শহরের যত্রতত্র গড়ে উঠেছে অস্থায়ী গরম কাপড়ের মার্কেট। এসকল খোলা মার্কেটে শিশু থেকে শুরু করে সব বয়সের মানুষের কাপড় পাওয়া যাচ্ছে। দাম হাতের নাগালে থাকায় সবসময় ক্রেতাদের ভিড় লেগেই থাকে অনেক বেশি।

এসব দোকানে পূর্বে শুধুমাত্র অসহায় ও গরিব মানুষেরা ছুটে আসতো। তবে এখন মানের বিচারে ভালো ও আরামদায়ক হওয়ায় ধনী-গরিব মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত সবাই ছুটছেন এসব দোকানগুলোতে।

শুধু ক্রেতারাই নয়। জেলার প্রত্যন্ত এলাকাগুলো থেকে কাপড়ের পাইকাররাও ছুটে আসছেন। তারা বাছাই ও গাইটসহ কিনে নিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্ন স্থানে। ফলে এ ব্যবসার সাথে ঠাকুরগাঁওয়ের অনেক মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িয়ে পড়েছেন।

লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ বাজার থেকে আসা কাপড়ের পাইকার আব্দুল লতিফ জানান, তিনি গত দুই শীত থেকে এই পুরাতন গরম কাপড়ের ব্যবসা করে আসছেন। এ ব্যবসায় এযাবৎ তিনি লোকসানের সম্মুখীন হননি।

লালমনিরহাটে এটি একটি লাভজনক মৌসুমী ব্যবসায় পরিণত হয়েছে। এর মাধ্যমে অনেকের জীবিকা নির্বাহের পথ প্রসারিত হয়েছে। পুরনো এসব কাপড় আসায় সব শ্রেণীপেশার মানুষ শীত নিবারণের পথ খুঁজে পেয়েছে।

শেয়ার করুন:

সংবাদ টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভাষা পরিবর্তন করুন




© All rights reserved © 2018 লালমনিরহাট অনলাইন নিউজ
Design BY PopularHostBD