সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন

বেচেঁ থাকার আকুতি আব্দুল গফুরের,টাকার অভাবে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে হসপিটালে

বেচেঁ থাকার আকুতি আব্দুল গফুরের,টাকার অভাবে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে হসপিটালে

লালমনিরহাট অনলাইন নিউজ ডেস্ক রিপোটঃ

‘মানুষ মানুষেরই জন্য’ একটু সহানুভুতি কি গফুর পেতে পারে না?

লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার আব্দুল গফুর ব্রেইন স্ট্রোক করে, মস্তিষ্কের প্রচুর রক্ত ক্ষরণের ফলে তার জ্ঞান ফিরেনি রংপুর মেডিকেলে,তার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বর্তমানে ঢাকার মেষ্টো হসপিটাল মহাখালিতে চিকিৎসাধীন আছে সে।

২৯/১২/১৮ তাং এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে হসপিটালে অপারেশন জন্য আছে কিন্তুু টাকার অভাবে অপারেশন করতে পারছে না।
জানাযায়,তিনি চার সন্তানের জনক, ব্রেইনে প্রচুর রক্ত ক্ষরণের ফলে এখনো পর্যন্ত জ্ঞান ফিরেনি তার ।

যখন তার ছেলে রায়হান জানতে পায় ৯/১০ লাখ টাকা লাগবে তখন তার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে। সেই টাকা তো তাদের কাছে নেই।  এমনকি পরিবারের সব কিছু বিক্রি করেও এত টাকা হবে না। যা কোনোভাবেই জোগাড় করার সামর্থ্য নেই হতদরিদ্র পরিবারটির।  ফলে বাবাকে বাঁচাতে চেয়েও চিকিৎসার টাকার অভাবে ছেলে বাবাকে বাচাঁতে পারবে কিনা ছেলেরা জানেন না।  বড় ছেল রায়হানের আকুতি কোথায় পাব এতো টাকা আমার বাবাকে বাঁচান, কেউ সহযোগিতা করুন। 

আপনাদের সামন্য সহযোগতিায় আমার বাবা বেঁচে যাবেন।  আমার বাবা টাকার অভাবে দুনিয়া থেকে চলে যাবে এটা কোনদিন মানতে পারছি না। টাকা হলেই আমার বাবা বাঁচবে বলে ছেলের আকুলতা। 

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জের আব্দুল গফুরের
মস্তিষ্কের প্রচুর রক্ত ক্ষরণের ফলে অপারেশন করাতে হবে দ্রুত চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। দ্রুতসময়ে তার অপারেশন করতে হবে।  তা না হলে তাকে বাঁচানো যাবে না। 

আব্দুল গফুর লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার উত্তর মুশরত  মদাতী গ্রামে তার বাড়ি।  তিনি ওই গ্রামের পিতা মৃত টনের উদ্দিনের ছেলে। 

প্রতিবেশী ও পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আব্দুল গফুর এক জন কৃষক।  অল্প একটু জমি আছে।  সেই জমিতে চাষাবাদ করে কোনোমতে সংসার চলে।

খাওয়া-দাওয়া ছেড়ে গফুরকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়ে আছে পরিবারের সদস্যরা।  ধার-দেনা ও অন্যের সহযোগিতা নিয়ে তার প্রথমে রংপুর হাসপাতালে ভর্তি করে।  পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে মহাখালিতে হাসপাতালে নিয়ে যায়। 

ঢাকার চিকিৎসকরা পরিবারকে জানিয়েছেন, গফুরকে বাঁচাতে জরুরি ভিত্তিতে অপারেশন করা প্রয়োজন। 

গফুরের ছেলে রায়হান বলেন, আমার এদ টাকা জোগাড়ের সামর্থ্য আমাদের নেই।  আমি গরিব মানুষ।  সবার সহযোগিতা চাই।  সবাই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলে হয়তো আমার বাবা বেঁচে যাবে ।  দয়া করে, আমার বাবাকে বাঁচান। 

অসুস্থ গফুর কে বাঁচাতে সবাই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিন।  সবার সহযোগিতা পেলে বাঁচবে গফুর। পরিবারটি আজ অসহায় বাবাকে বাঁচানোর আকুতি নিয়ে দ্বারস্থ হয়েছেন সকলের দোয়ারে।

তাকে সাহায্য পাঠানো যাবে বিকাশ নম্বর-(০১৭২৩৫৮৮০৮৫)। মোঃ রেজোয়ানুল ইসলাম  এছাড়া ইসলামী ব্যাংকের লালমনিরহাট শাখায় ১৪১৭০ সঞ্চয়ী হিসাব নম্বরে তাকে সাহায্য পাঠানো যাবে। 

শেয়ার করুন:

সংবাদ টি শেয়ার করুন

ভাষা পরিবর্তন করুন




© All rights reserved © 2018 লালমনিরহাট অনলাইন নিউজ
Design BY PopularHostBD