সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৪২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
লালমনিরহাট অনলাইন নিউজের ২য় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে লাইভে গান করবেন মুনিয়া মুন কালীগঞ্জে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ১ হজার বৃক্ষ রোপন কালীগঞ্জে জাতীয় ভিটামিন “এ” প্লাস ক্যাম্পেইন বিষয়ে অবহিত করণ সভা হাতীবান্ধায় বীর মুক্তিযোদ্ধাকে বটি দিয়ে কোপানোর চেষ্টা, মেয়েকে ধর্ষনের হুমকি কালীগঞ্জে বন্যা দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কালীগঞ্জে বাল্যবিয়ের দায়ে কাজীর ৬ মাসের জেল,৫ হাজার টাকা জরিমানা করোনা কালীন শিক্ষা যোদ্ধা সহঃশিক্ষক  রুবেল    কালীগঞ্জে তেলের ঘানি টানা ছয়ফুল পেলেন প্রধানমন্ত্রী উপহার এছাড়াও পুলিশ ও  বসুন্ধরার বাল্য বিবাহ দেয়ার পরিনাম হচ্ছে একটি মেয়ে শিশুকে হত্যা করা- জেলা প্রশাসক কালীগঞ্জে অসহায় পরিবারকে চিকিৎসার জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর পক্ষে আর্থিক সহায়তার চেক প্রদান
সময় থাকলে এক নজর দেখে নিন ‘নিম গাছের উপকারিতা ও গুণাগুণ’

সময় থাকলে এক নজর দেখে নিন ‘নিম গাছের উপকারিতা ও গুণাগুণ’

প্রাচীনকাল হতে, মানুষ রোগ আরোগ্যের জন্যে ভেষজ উদ্ভিদ ব্যবহার করে আসছে। কোন উদ্ভিদের রোগ নিরাময় ক্ষমতা থাকলে তাকে ভেষজ উদ্ভিদ বলে। এছাড়া উদ্ভিদ মানুষের জীবনে উপকার হিসেবেই কাজ করে আসছে। যেমন নিম গাছ, নিম গাছের সঙ্গে সবাই কমবেশি পরিচিত আছে। বাংলায় যেমন নিম বা নিম গাছ, হিন্দি ও উর্দুতে নিম এবং সংস্কৃতে নিম নামে পরিচিত, বৈজ্ঞানিক নাম অ্যাজাডিরাকটা ইনডিকা (অুধফরৎধপযঃধ রহফরপধ অুঁংং) মেলিয়েসি গোত্রের।

 নিম গাছের উপকারিতা- খ্রিষ্টপূর্ব আনুমানিক ৪০০ সালে বৈদিক যুগে নিম জীবাণু ধবংসকারী হিসেবে প্রয়োগ হতো। ক্ষয় রোগ, ক্রিমি প্রভৃতি রোগে নিমের উপকারিতার প্রমাণ পাওয়া যায়। দুষিত বায়ু বা অন্য কোন কীটের উপদ্রব থেকে রক্ষা করতে এর ভুমিকা আছে।

নিম গাছের গুণাগুণ- নিমের ছাল অজীর্ণ রোগে ৪/৫ গ্রাম নিমের ছাল ১কাপ গরম জলে রাতে ভিজিয়ে সকালে খালি পেটে খেলে উপকার পাওয়া যায়। যে কোন বয়সে স্বপ্নদোষে নিমের ছালের রস ২৫/৩০ ফোটা কাঁচা দইসহ সেবন করলে উপকার পাওয়া যায়। গায়ে চুলকানি বা শরীরে সর্বদা চুলকায় সে ক্ষেত্রে শুকনা নিমপাতা তেলে ভেজে ভাতের সঙ্গে খেলে সপ্তাহ মধ্যে এ অসুবিধা থাকে না।  গুড়ো কৃমি- ৫/৭টি নিম পাতার গুড়ো করে খেলে ফলদায়ক হয়।  নিম ফুল- রাতকানা রোগে নিমের ফুল ভেজে খেলে এ অসুবিধা থাকে না। দীর্ঘদিনের ক্ষতে নিমের ছাল জা¦ল দিয়ে কাথ করে খেলে ক্ষতের আরোগ্য হয়।

 বেশি বমি হলে ৫/৭ ফোঁটা নিম পাতার রস দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খেলে বমিভাব থাকে না।

 ৩/৪টি নিম পাতা ও ১ গ্রাম কাচাঁ হলুদ এক সঙ্গে বেটে খালি পেটে খেলে প্র¯্রাব ও সেই সঙ্গে চুলকানি থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। যে সমস্ত বহুমূত্র রোগীর গায়ের ঘা সারতে চায় না সে ক্ষেত্রে নিমের বাটা

এ থেকে দেড়গ্রাম মাত্রায় দুধের সঙ্গে খেলে উপকার পাওয়া যায়।এক গ্রাম নিমের ছাল, অর্ধ গ্রাম কাঁচা হলুদ ও একগ্রাম আমলকির গুড়ো সকালে খালি পেটে সপ্তাহ খেলে যকৃতের ব্যথা উপশম হয়।

মোট কথা নিম গাছ যে বাড়ির আঙ্গিনায় থাকে রোগ বালাই কম থাকে বলে ধারনা করা হয়।

শেয়ার করুন:

সংবাদ টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভাষা পরিবর্তন করুন




© All rights reserved © 2018 লালমনিরহাট অনলাইন নিউজ
Design BY PopularHostBD